Dhaka , Saturday, 13 July 2024
www.dainikchalonbilerkotha.com

আধা ঘণ্টার ব্যবধানে মারা যাওয়া স্বামী- স্ত্রীর দাফন সম্পন্ন

ভাঙ্গুড়া(পাবনা)প্রতিনিধি:


পাবনার ভাঙ্গুড়ায় প্রায় আধাঘন্টার ব্যবধানে মারা যাওয়া সরোয়ার হোসেন (৩৫) ও লাইলি খাতুন(৩০) দম্পতির মরদেহ দুটি পাশাপাশি কবরস্থ করা হয়েছে।আজ বুধবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে জানাযার নামাজ শেষে স্থানীয় ভেড়ামারা কবরস্থানে তাদের দাফন সম্পন্ন হয়।

এর আগে গত মঙ্গলবার (১২ ডিসেম্বর) বিকেলে ) দম্পতি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান স্ত্রী লাইলি খাতুন। এর প্রায় আধা ঘণ্টার মধ্যে স্ত্রীর বিয়োগ ব্যাথা সইতে না পেরে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন স্বামী সরোয়ারও। তাদের বাড়ি উপজেলার পার-ভাঙ্গুড়া ইউনিয়নের চক্রপাড়া গ্রামে। আট বছর বয়সী একটি ছেলে সন্তান রয়েছে তাদের।হৃদয় বিদারক এমন মৃত্যুর খবরে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। শত শত মানুষ মৃত দম্পতিকে এক নজর দেখার জন্য ভিড় করেন ওই বাড়িতে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,প্রায় এক যুগ আগে ভালোবেসে সংসার পেতেছিলেন
সরোয়ার ও লাইলি দম্পতি।বেশ কয়েক দিন ধরে হার্ডের অসুখে ভুগছিলেন স্ত্রী লাইলি খাতুন। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে লাইলির শরীরিক অসুস্থতা বৃদ্ধি পেলে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করা হয়।বিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হাসপাতালের বেডেই মারা যান লাইলি।স্ত্রীর মৃত্যুর শোক সইতে না পেরে প্রায় আধা ঘণ্টার মধ্যেই মারা যান স্বামী সরোয়ারও।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক ফাহমিদা সুলতানা বলেন,’স্ত্রীর মৃত্যু দেখে স্বামীর কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয়ে থাকতে পারে।’

পার ভাঙ্গুড়া ইউনিয়ন পরিষদের(ইউপি) চেয়ারম্যান হেদায়েতুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন,প্রায় ৩০ মিনিট সময়ের ব্যবধানে স্বামী-স্ত্রীর এমন মৃত্যু খুবই দুঃখ জনক।

আধা ঘণ্টার ব্যবধানে মারা যাওয়া স্বামী- স্ত্রীর দাফন সম্পন্ন

আপডেটের সময় 10:22 pm, Wednesday, 13 December 2023

ভাঙ্গুড়া(পাবনা)প্রতিনিধি:


পাবনার ভাঙ্গুড়ায় প্রায় আধাঘন্টার ব্যবধানে মারা যাওয়া সরোয়ার হোসেন (৩৫) ও লাইলি খাতুন(৩০) দম্পতির মরদেহ দুটি পাশাপাশি কবরস্থ করা হয়েছে।আজ বুধবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে জানাযার নামাজ শেষে স্থানীয় ভেড়ামারা কবরস্থানে তাদের দাফন সম্পন্ন হয়।

এর আগে গত মঙ্গলবার (১২ ডিসেম্বর) বিকেলে ) দম্পতি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান স্ত্রী লাইলি খাতুন। এর প্রায় আধা ঘণ্টার মধ্যে স্ত্রীর বিয়োগ ব্যাথা সইতে না পেরে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন স্বামী সরোয়ারও। তাদের বাড়ি উপজেলার পার-ভাঙ্গুড়া ইউনিয়নের চক্রপাড়া গ্রামে। আট বছর বয়সী একটি ছেলে সন্তান রয়েছে তাদের।হৃদয় বিদারক এমন মৃত্যুর খবরে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। শত শত মানুষ মৃত দম্পতিকে এক নজর দেখার জন্য ভিড় করেন ওই বাড়িতে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,প্রায় এক যুগ আগে ভালোবেসে সংসার পেতেছিলেন
সরোয়ার ও লাইলি দম্পতি।বেশ কয়েক দিন ধরে হার্ডের অসুখে ভুগছিলেন স্ত্রী লাইলি খাতুন। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে লাইলির শরীরিক অসুস্থতা বৃদ্ধি পেলে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করা হয়।বিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হাসপাতালের বেডেই মারা যান লাইলি।স্ত্রীর মৃত্যুর শোক সইতে না পেরে প্রায় আধা ঘণ্টার মধ্যেই মারা যান স্বামী সরোয়ারও।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক ফাহমিদা সুলতানা বলেন,’স্ত্রীর মৃত্যু দেখে স্বামীর কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয়ে থাকতে পারে।’

পার ভাঙ্গুড়া ইউনিয়ন পরিষদের(ইউপি) চেয়ারম্যান হেদায়েতুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন,প্রায় ৩০ মিনিট সময়ের ব্যবধানে স্বামী-স্ত্রীর এমন মৃত্যু খুবই দুঃখ জনক।