Logo
শিরোনাম
রমানাথপুরসহ কয়েকটি গ্রামের অর্ধশত পরিবার পেলো  ঈদ সামগ্রী উপহার কুয়াবাসী গ্রামের ১০০ পরিবার পেলো ঈদ উপহার কবিতা ভালোবাসার লাল গোলাপ কবি সাজিয়া আফরিন কবি -পিএম. জাহিদের ধারাবাহিক সিরিজ কবিতা ” নীলকষ্টের পরিক্রমা ২” আমি ছুয়ে যাই শিরোনামে কবি হাবিবুর রহমানের লেখা কবিতা কবি সাজিয়া আফরিনের কবিতা “এইতো জীবন “। কবি পি এম জাহিদের ধারাবাহিক কবিতা “নীলকষ্ঠের পরিক্রমা-০১” নোবেলের ‘মেহেরবান’ আসছে ২৫ রোজার পর কবি মোঃ আমিনুল ইসলাম মিন্টুর সমসাময়িক পরিস্থিতির কবিতা ” সমাজ এখন জিম্মি “। পাবনায়১২ কেজি গাঁজাসহ এসআই ওছিম গ্রেপ্তার। কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানা পরিদর্শন করলেন এসপি খাইরুল আলম কুষ্টিয়ায় জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে অবরুদ্ধ কৃষক সৈয়দ বেলাল হোসেন পাবেল এর নেতৃত্বে ধান কাটলো পটুয়াখালী জেলা ছাত্র লীগ সাতদিনেই ভেঙ্গে গেলো শ্রাবন্তীর ভালোবাসার সংসার ভোলায় এক মাসে ডায়রিয়া আক্রান্ত ৫ হাজারের অধিক ॥ পানিতে মিলেছে ডায়রিয়া জীবানু সিংড়ায় ট্রাকের ধাক্কায় দুই মাদ্রাসা শিক্ষক নিহত কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে সালিশি বৈঠকে সংঘর্ষ মেম্বার সহ আহত -৯ বিশ্ব বই দিবস আজ: যেভাবে এলো দিনটি কবি পিএম. জাহিদের মেথরের বেটি- ২ কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে রিমা নামের এক নববধূর লাশ উদ্ধার

সরকারি চাকরির পাশাপাশি কৃষিতে বিপ্লব।

শিহাবুর রহমান শাকিব, ভোলা প্রতিনিধিঃ


ভোলা লালমোহনে সরকারী চাকরী করেও নিজের বাড়িতে বিভিন্ন ফল, সবজি, ধান, মাছ ও গবাধী পশু পালন করে সফলতার নজির স্থাপন করলেন মোঃ নুরুজ্জামান। প্রায় ৮ একর জমিতে চাষাবাদ করে চাকরীর পাশাপাশি তিনি এখন একজন সফল চাষী। চাষাবাদ থেকেই পরিবারের সব চাহিদা পূরণ হয়। চাহিদা পূরণ করে উৎপাদিত পণ্য ও পশু বাজারে বিক্রি করে বছরে ৮ থেকে ১০ লক্ষ টাকা আয় করেন তিনি। তার বাড়িতে গেলেই চোখে পড়ে সারি সারি মাল্টা গাছ, পেঁপে গাছ, কলা গাছ। সবগুলোতে ফল ধরে আছে। তার এমন উদ্যোগে উৎসাহিত হচ্ছেন স্থানীয় আরো অনেকে।
মোঃ নুরুজ্জামান লালমোহন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান সহকারী। তার বাড়ি উপজেলার পশ্চিম চরউমেদ ইউনিয়নের গজারিয়া এলাকায়। নিজের বাড়িতে তিনি এমন কোন ফল গাছ ও সবজি নেই যা চাষ করেননি। ফুল কপি, পেঁপে, করলা, মিষ্টি কুমড়া, শাকসবজি থেকে শুরু করে মাল্টা, আখ, আম, কলা, লিচু, আমড়া, পেয়ারাসহ অর্ধশত ফল ও সবজির বাগান তার বাড়ি ও খামারে। করছেন ধান চাষ, মাছ, হাঁস-মুরগী ও গবাধী পশু পালন। বছরের প্রতিটি মৌসুমে তিনি সময় উপযোগী সবজি চাষ করেন। ৮টি পুকুরে একই সাথে সমন্বিত উপায়ে মাছ ও সবজি চাষ করেন। এসব চাষাবাদ নিজের পরিশ্রম আর উদ্যোগ নিয়ে করছেন বলে জানান নুরুজ্জামান। তিনি সবসময় কৃষি অফিসের পরামর্শ নিয়ে এসব চাষাবাদ করছেন। চাকরীর পাশাপাশি অবসর সময়ে কৃষি কাজের প্রতি এমন উদ্যোগী হওয়ায় এলাকায় প্রশংসিত নুরুজ্জামান।

 

নুরুজ্জামান জানান, তার স্ত্রী নারগিস বেগম তাকে সবসময় সহযোগিতা করে আসছে। স্ত্রী একজন গ্রাজুয়েট হওয়া সত্ত্বেও নিজেই খামার দেখা শোনা করেন। হাঁস-মুরগী, গবাধী পশু লালন পালন করেন। তাদের ৩ ছেলে। বড় ছেলে মেডিকেলে পড়ে। মেঝ ছেলে পলিটেকনিক্যালে পড়ে। আর ছোট ছেলে মাদ্রাসায় হাফেজি পড়ে।
তিনি জানান, ২০০৩ সাল থেকে গজারিয়ার দক্ষিণ পাশে নতুন বাড়ি করার পর থেকে তার কৃষির প্রতি আগ্রহ জন্মে। প্রথমে বাড়ির আঙ্গিনায় সবজি চাষ শুরু করেন। এতে পরিবারের চাহিদা পূরণ হয়েও বাড়তি সবজি বিক্রি করে বেশ উপার্জন হতো। পরে ক্রমান্বয়ে ৮ একর জমিতে শুরু করেন খামার। প্রতি বছর তার সব মিলিয়ে ৩ থেকে ৪ লাখ টাকা খরচ হলেও ৮ থেকে ১০ লাখ টাকা আয় হয় বলে জানান নুরুনজ্জামান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Categories

Theme Created By ThemesWala.Com