Logo
শিরোনাম
জনগুরুত্বপুর্ণ রাস্তার বেহাল দশাঃসংস্কার চাই। ইসরাইলের বর্বরতার বিরুদ্ধে স্বরচিত কবিতা পাঠের আসর সিংড়ায় রোজিনা ইসলামের মুক্তির দাবিতে সাংবাদিকদের মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা রমানাথপুরসহ কয়েকটি গ্রামের অর্ধশত পরিবার পেলো  ঈদ সামগ্রী উপহার কুয়াবাসী গ্রামের ১০০ পরিবার পেলো ঈদ উপহার কবিতা ভালোবাসার লাল গোলাপ কবি সাজিয়া আফরিন কবি -পিএম. জাহিদের ধারাবাহিক সিরিজ কবিতা ” নীলকষ্টের পরিক্রমা ২” আমি ছুয়ে যাই শিরোনামে কবি হাবিবুর রহমানের লেখা কবিতা কবি সাজিয়া আফরিনের কবিতা “এইতো জীবন “। কবি পি এম জাহিদের ধারাবাহিক কবিতা “নীলকষ্ঠের পরিক্রমা-০১” নোবেলের ‘মেহেরবান’ আসছে ২৫ রোজার পর কবি মোঃ আমিনুল ইসলাম মিন্টুর সমসাময়িক পরিস্থিতির কবিতা ” সমাজ এখন জিম্মি “। পাবনায়১২ কেজি গাঁজাসহ এসআই ওছিম গ্রেপ্তার। কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানা পরিদর্শন করলেন এসপি খাইরুল আলম কুষ্টিয়ায় জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে অবরুদ্ধ কৃষক সৈয়দ বেলাল হোসেন পাবেল এর নেতৃত্বে ধান কাটলো পটুয়াখালী জেলা ছাত্র লীগ সাতদিনেই ভেঙ্গে গেলো শ্রাবন্তীর ভালোবাসার সংসার ভোলায় এক মাসে ডায়রিয়া আক্রান্ত ৫ হাজারের অধিক ॥ পানিতে মিলেছে ডায়রিয়া জীবানু সিংড়ায় ট্রাকের ধাক্কায় দুই মাদ্রাসা শিক্ষক নিহত কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে সালিশি বৈঠকে সংঘর্ষ মেম্বার সহ আহত -৯

ভোলায় ইলিশ ধরার অপরাধে ৫৯ জেলের জেল-জরিমানা

ভোলায় ইলিশ ধরার অপরাধে ৫৯ জেলের জেল-জরিমানা

এস আর শাকিব খান, ভোলা প্রতিনিধিঃ


নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ শিকারের দায়ে গত ৩ দিনে ভোলায় ৫৯ জেলের জেল-জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। শনিবার (১৬ অক্টোবর) বিকাল পর্যন্ত ভোলা সদর ও বোরহানউদ্দিন উপজেলা থেকে তাদের আটক করা হয়। আটককৃতদের মধ্য ৮ জনের এক বছর করে জেল ও ৫ জনের ৫ হাজার করে ২৫ হাজার জরিমানা আদায় করা হয়েছে। ভোলায় নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ ধরার অপরাধে ২৫ জনকে জেল জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) সন্ধ্যা পর্যন্ত অভিযানে তাদের জেল-জরিমানা করা হয়। নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ ধরার অপরাধে ভোলার চরফ্যাশনে ও মনপুরায় ১২ জেলেকে আটক হয়। পরে ভ্রাম্যনান আদালত উভয় জেলেকে ১ বছর করে সাজা প্রধান করেন।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুমে জেলেরা যাতে ইলিশ শিকার করতে না পারে সেজন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, মৎস্যবিভাগ, পুলিশ, নৌ-পুলিশ ও কোস্টগার্ড অভিযান চালায়। এ সময় মেঘনার বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে ইলিশ ধরার অপরাধে ১৩ জেলেকে আটকের পর জেল-জরিমানা করা হয়েছে। গত ৩ দিনে এ পর্যন্ত ৫০ জেলেকে আটক করা হয়েছে, যাদের মধ্যে ২৮ জনের কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। ইলিশ রক্ষায় সর্বমোট ২৯টি অভিযান ও ২৫টি মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয়েছে বলেও জানান তিনি।
এদিকে, ভোলায় নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ ধরার অপরাধে ২৫ জনকে জেল জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) সন্ধ্যা পর্যন্ত অভিযানে তাদের জেল-জরিমানা করা হয়। আটককৃতদের মধ্যে বোরহানউদ্দিন থেকে ৪ জন, মনপুরা থেকে ৭ জন, ভোলা সদরে ৩ জন ও চরফ্যাশন থেকে ১১ জন রয়েছে।
এদের মধ্যে ১৫ জনের এক বছর করে কারাদন্ড ও ১০ জনের জরিমানা আদায় করা হয়েছে। জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ আজাহারুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ইলিশ রক্ষায় ভোলার মেঘনা তেঁতুলিয়ায় সকাল থেকে সন্ধা পর্যান্ত জেলায় ১৪টি টিম টহলে ছিলো।
এ সময় টহল দলের অভিযানে ২৫ জেলেকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমান আদালতে ১৫ জনের কারাদন্ড ও ১০ জনের ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা আদায় করা হয়।
অন্যদিকে, নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ ধরার অপরাধে ভোলার চরফ্যাশনে ও মনপুরায় ১২ জেলেকে আটক হয়। পরে ভ্রাম্যনান আদালত উভয় জেলেকে ১ বছর করে সাজা প্রধান করেন। এর আগে আভিজানের প্রথমদিনে ৯ জেলেকে ৫ হাজার করে ৪৬ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়াও ১১ হাজার মিটার কারেন্ট জাল ও ১২ কেজি ইলিশ জব্দ করা হয়েছে। আটককৃত জেলেদের মধ্যে তজুমদ্দিনে উপজেলায় ৭ জন ও বোরহানউদ্দিন উপজেলায় ২ জন রয়েছে। এখন পর্যন্ত মা ইলিশ ধরার অপরাধে ভোলায় ২১ জেলেকে জেল-জরিমানা করা হয়েছে।
জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আজহারুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুমে ১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত ২২ দিন ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ। ইলিশ রক্ষায় জেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালিত হয়েছে। এসব অভিযানে মৎস্যবিভাগ, পুলিশ ও কোস্টগার্ড টহল ছিলো। প্রথমদিনে মেঘনা-তেঁতুলিয়া নদীতে তেমন মাছ ধরার নৌকা দেখা যায়নি, তবে যারা নেমেছে তাদের আটক করে মোবাইল কোর্টে জরিমানা আদায় করা হয়েছে।
এ বছর ইলিশ নিষেধাজ্ঞা সময়ে জেলার এক লাখ ২০ হাজার নিবন্ধনকৃত জেলেকে ২০ কেজি করে চাল দেয়া হবে। যা আগামী ২/৩ দিনের মধ্যে বিতরন শেষ হবে।
এদিকে কোস্টগার্ডের পক্ষ থেকে জেলেদের সচেতনার করার লক্ষে ভোলার ইলিশা তালতলিসহ বিভিন্ন মাছঘাটে কোস্টগার্ড দক্ষিন জোনের জোনাল কমান্ডার ক্যাপ্টেন এম মনজুর-উল- করিম চৌধুরী মৎস্যজীবি, বোট মালিক সমিতির সদস্য ও মৎস্য ব্যবসায়ীদের মাঝে লিফলেট বিতরণ করেন।
নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে যেন কেউ যেন মা ইলিশ ধরতে নদী না নামে সে জন্য জেলেদের সচেতন করতে এ লিফলেট বিতরন করা হয়। কোস্টগার্ড ইলিশ রক্ষায় ১৬টি স্থায়ী ও লালমোহনে ১টি অস্থায়ী ষ্টেশন বরিশাল বিভাগের ৫টি জেলায় টহল কার্যক্রম শুরু করেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Categories

Theme Created By ThemesWala.Com