Logo
শিরোনাম
আসন্ন ১নং চরজব্বার ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে চান মোঃ অলি উদ্দিন। কবিতার শিরোনাম নবীর আগমনে কবি সৈয়দুল ইসলাম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে শ্যামপুর মাদ্রাসায় বৃক্ষরোপণ গণসংযোগে ব্যাস্ত চেয়ারম্যান প্রার্থী সাইদুর রহমান সুবর্ণচরে মহিলা মেম্বার প্রার্থী বিলকিস সুলতানা প্রচার প্রচারণায় এগিয়ে পাবনায় সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় জামান ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিক সুমনের বিরুদ্ধে মামলা সিংড়ায় বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে শিক্ষার্থীর মৃত্যু ভাঙ্গুড়ায় বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা ক্যাম্পেইনের উদ্বোধন ভাঙ্গুড়ায় কোভিড-১৯ পরবর্তী প্রাথমিক বিদ্যালয় পুনরায় চালুকরণের লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা ভাঙ্গুড়ায় ওয়াশ ব্লক নির্মাণ কাজের উদ্ধোধন ভক্তদের ভালোবাসায় সিক্ত হলেন পরীমনি ভাঙ্গুড়ায় বিএনপির ৪৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন করোনা কালীন হেল্প সেন্টারের উদ্বোধন হন্তারক ★★ -পিএম. জাহিদ জীবন যেখানে যেমন পদ্মা সেতুর স্প্যানে ফেরির মাস্তুলের ‘ধাক্কার’ খবর, পরির্দশনে যাচ্ছে একটি দল মহান নেতা ★★ফেরদৌসী খানম রীনা আমাদের দেশ একটি অসাম্প্রদায়িক দেশ খাদ্যমন্ত্রী মেঘ কন্যা চাঁদে ★ কবি হাবিবুর রহমান  চলনবিলে শাপলার সমাহার ভাঙ্গুড়া উপজেলায় জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে মতবিনিময় সভা

কবিতার শিরোনামঃ আমি ধোকাবাজ, কবি দোলনা বড়ুয়া তৃষা।

 

আমি ধোকাবাজ
দোলনা বড়ুয়া তৃষা


আমি নাকি ধোকাবাজ
ভীষণ রকম ধোকাবাজ।
আমি কখনো অস্বীকার
করার সাহস পাই নি যে,
আমি ধোকাবাজ।

আমি ধোকাবাজ
আমার সে বেস্ট ফ্রেন্ড টার কাছে,
যার খাতায় নিজের হাতে
নোট করে দেওয়ার পর,
সে পরিপাটি চুলে আসা
অদ্ভুত সুঘ্রানওয়ালা
মেয়েটাকে তা তুলে দিয়েছিলো।
বলেছিল, রাগ করেছিস?
আমি তাকে হারানোর ভয়ে বলেছিলাম
না রে,
আমি সেই ধোকাবাজ।

আমি ধোকাবাজ আমার বাবার কাছে
যে বার আমার হারমোনিয়াম কেনার কথা ছিল
সে বার ভাইয়ে চলতে থাকা
পুরানো সাইকেল থাকার শর্তেও
নতুন সাইকেলটা উঠানে যখন চালাচ্ছিল
বাবা জিজ্ঞেস করেছিল, রাগ করেছিস?
আমি মাথা নেড়ে, না বলেছিলাম।
তুলে আনা স্বরলিপি গুলো যখন
ছিড়ে ফেলছিলাম জানি কেন তা ভিজে যাচ্ছিলো।
আমি তখন থেকেই ধোকাবাজ ছিলাম।

আমি তো প্রিয় স্যারটার কাছেও
ধোকাবাজ ছিলাম।
শুধু প্রাইভেট পড়তাম না বলে যখন
আমি ফার্স্ট হতাম না।
তখন স্যার বলত, মন খারাপ?
আমি বলতাম, না তো স্যার।
আমি সেই ধোকাবাজ।

তিনঘন্টা বসিয়ে রেখে বান্ধবী যখন
আমায় সাথে নিতে ভুলে যেতো।
আমিই স্বীকার করতাম
আমিই চলে গিয়েছিলাম।
সে অনায়সে আমায় ধোকাবাজ বলতো।

আমি তো সে ছেলেটার কাছেও ধোকাবাজ
যে আমায় ভালোবাসার চিঠি দিতো
আর আমি বলতাম, আমি পাই নি,
আমার বক্সে থাকা সেসব চিঠির মালিকটাও
আমায় ধোকাবাজ বলতো।

আমার ছোট বোনটার কাছেও
আমি ধোকাবাজ,
যখন আমার নতুন জমা
সে কয়েক দফা পড়ে পুরানো করে
বলতো, রাগ করেছিস?
আমি বলতাম, ধুর, ওটা আমার পছন্দই হয়নি।
আমি নাকি তখন থেকেই ধোকাবাজ।

আমি সবচেয়ে বড় ধোকাবাজ ছিলাম তো
তোমার কাছে, তাই না?
চার বসন্ত হলুদ শাড়িতে ঘুরার পর
পরের বছর লাল বেনারসি পড়ার কথা ছিল।
তুমি শাড়ি তো কিনলে,
তবে মানুষটা পালটে গেল।
আমি যখন কষ্ট পাচ্ছিলাম না,
হেসে তোমাদের সুখে থাকার
আর্শীবাদ দিচ্ছিলাম
তখন তুমি অবাক চোখে
আমায় ধোকাবাজ বলেছিলে।
আমার হাজার কুচি হওয়া বেনারসিটা সাক্ষী
কত্ত বড় ধোকাবাজ আমি।

আমি সে মানুষ টার কাছেও ধোকাবাজ
যার সাথে পাশাপাশি বালিশে শুয়েও
যখন আমি দেহের উষ্ণতা ছাড়িয়ে
মন খুঁজে পাই নি, তাও ভালোবেসেছি
তখন থেকেই আমি ধোকাবাজ।

আমি ধোকাবাজ সে মায়ের কাছেও
যখন উনার ধাক্কায় তিনমাসের সন্তানটা
আলোয় দেখল না,
তখন তার অনুতাপে তাকে ক্ষমা করেছি বলেছি
কিন্তু আমার বুকে রক্তের খরস্রোত জানে
আমি কত্ত বড় ধোকাবাজ।

আমি ধোকাবাজ তো সে সব মানুষের কাছেও
যাদের জন্য সবটুকু বির্সজন দিয়েও
আমি অর্কম্মার তকমা গায়ে লাগিয়েছি
তাদের কাছে আমি ধোকাবাজ।

আমি ধোকাবাজ,
সব ভালোবাসাতে না জানা মানুষকে
আকড়ে ধরার অপরাধে।
আমি ধোকাবাজ,
আমার জন্য বানানো খাদে
হেসে হেসে পা দেওয়ার অপরাধে।
আমি ধোকাবাজ
সেই খাঁচার পাখিটা মুক্ত করার অপরাধে।
আমি ধোকাবাজ
কষ্ট ভুলে হাসতে জানার অপরাধে।
আমি ধোকাবাজ
তোমায় ভালোবাসার অপরাধে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Categories

Theme Created By SmartiTHost