Logo
শিরোনাম
কবিতা স্বপ্নের পদ্মা কবি বনশ্রী বড়ুয়া মালয়েশিয়ার বিপক্ষে সিরিজ জিতল বাংলাদেশের মেয়েরা কবিতা মেঠো রোদ্দু কবি রবীন্দ্রনাথ হালদার জননেতা শাহে আলম এমপি’র যুক্তরাষ্ট্রে আগমণ পাবনায় একসঙ্গে ৩ সন্তানের জন্ম; নাম পদ্মা-সেতু-উদ্বোধন পদ্মা সেতু পার হওয়া প্রথম লেডি বাইকার রুবায়েত পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে পাবনায় বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা আজ ২৫শে জুন ২০২২ উদ্বোধন হলো স্বপ্নের পদ্মাসেতু সারাদেশের বেশিরভাগ ক্রিকেট ব্যাটের চাহিদা পূরণ করছে যশোর না ফেরার দেশে সাবেক মিস ব্রাজিল গ্লেসি বহুল আলোচিত ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার ম্যাচ হবে ব্রাজিলে পাবনায় আওয়ামী লীগের ৭৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত পাবনার ভাঙ্গুড়ায় কৃষক মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত পাবনায় টাইলসের এক্সক্লুসিভ শো-রুম খুলেছে সানিটা খাবার ও টাকা নিয়ে বানভাসিদের কাছে নায়ক-নায়িকারা সারা দেশে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চলছে: প্রধানমন্ত্রী পাবনায় ৩৬ মণ ওজনের স্বপ্নরাজ’র দাম ২০ লাখ ঢাকায় আসছেন বলিউড অভিনেত্রী শিল্পা শেঠি ভাঙ্গুড়া পৌরসভার ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা কাতার বিশ্বকাপ জয়ের পরিকল্পনা ব্রাজিল কোচ তিতের

পাবিপ্রবিতে উৎসবমুখর পরিবেশে নবীনবরণ অনুষ্ঠিত

 

পাবনা (জেলা) প্রতিনিধি

 

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২২ মে (রবিবার) উৎসবমুখর ও আনন্দঘন পরিবেশে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের (১৩তম ব্যাচের) শিক্ষার্থীদের নবীনবরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। নবীনবরণ উপলক্ষে ক্যাম্পাস ছিল জামজমকপূর্ণ ও বর্ণিলময়। নবীন শিক্ষার্থীদের পদচারণায় ক্যাম্পাস ছিল কোলাহলমুখর। উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এস এম মোস্তফা কামাল খানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন।

 

 

সকাল ১০.৩০ মিনিটে স্বাধীনতা চত্বরে পবিত্র ধর্মগ্রন্থ পাঠের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠানের শুরু হয়। এরপর জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। স্বাগত বক্তব্য দেন অনুষ্ঠানের আহবায়ক অধ্যাপক ড.এসএম মোস্তফা কামাল খান। এ পর্যায়ে নবীণ শিক্ষার্থীদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেন উপাচার্য ও উপ-উপাচার্য। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন নবীন শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে জ্ঞান অর্জন, আহরণ এবং জ্ঞান তৈরি করতে হবে। জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে একটু একটু করে ভালো কাজ করে জমা করতে হবে এবং সেই জমানো ভালো কাজটিই একসময় বড় আকারে জীবনের ব্যাংকে জমা হবে। পড়াশোনার পাশাপাশি তোমাদের শিল্পসাহিত্য সংস্কৃতি খেলাধুলাসহ অন্যান্য কর্মকান্ডও বাড়াতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়, বিভাগ, নিজের বন্ধুবান্ধব সর্বোপরি মানুষকে ভালোবাসতে হবে। ভালোবাসতে না পারলে ভালো কাজ করা যায়না। বিশ্বকে জয় করার জায়গা বিশ্ববিদ্যালয়।

 

উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এস এম মোস্তফা কামাল খান বলেন, একুশ শতকের বিশ্বের সাথে প্রতিযোগিতার জন্য অন্যতম মাধ্যম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি। প্রযুক্তির বিকাশের জন্য এই বিশ্ববিদ্যালয় নতুন নতুন জ্ঞান তৈরী করছে। গবেষণার নতুন নতুন ক্ষেত্র সৃষ্টি করছে। পাশাপাশি গণতন্ত্র, মুক্ত চিন্তা সর্বোপরি বিশ্ব মানব তৈরী করছি আমরা। চতর্থ শিল্প বিপ্লবের যোগ্য ও সুনাগরিক তৈরী হচ্ছে এখানে। আগামী শতকের বাংলাদেশ গড়ে উঠবে তোমাদের হাত দিয়ে। তারুণ্যের শক্তি দিয়ে দেশ ও জাতির প্রতি দায়বদ্ধতা থেকে আধুনিক বাংলাদেশ গড়ে তুলবে এখানকার শিক্ষার্থীরা।

 

 

আরো বক্তব্য প্রদান করেন বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. খায়রুল আলম, প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদের ডিন অধ্যাপক মো. সাইফুল ইসলাম, মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. হাবিবুল্লাহ, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. কামরুজ্জামান, জীব ও ভূ-বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. মোহাম্মদ নাজমুল ইসলাম, রেজিস্ট্রার (চলতি দায়িত্ব) বিজন কুমার ব্রহ্ম, প্রক্টর ড. মো. হাসিবুর রহমান, ছাত্র উপদেষ্টা ড. সমীরণ কুমার সাহা। নবীন শিক্ষার্থী শমী কায়সার ও মুরসালিন হোসেন এবং অধ্যয়নরত সানজিদা স্মৃতি ও উৎসব কুমার দাস অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন। নবীনবরণ অনুষ্ঠানের সদস্য সচিব ছিলেন অতিরিক্ত পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ফজলে রাব্বি খান। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মীর হুমায়ূন কবীর এবং ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রওশন ইয়াজদানী। অনুষ্ঠানে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা, কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Categories

Theme Created By SmartiTHost
x